Sex chatting with bengali boudi site

Prothom din ghore dhuki bela 2 toi, tai khaoa daoa ki korbo bujhte parchilam na kenona ghor gochanor jhemela chilo abar porer din theke amar office ache, tai ektu tension chilam.Thik sei somoy Ajay babu elen amar sathe porichay korte, songe Anita debi’o chilen.

Sex chatting with bengali boudi site-71

Oh and I hope that this doesn't influence the already spotty writing in the show jfc.

Despite my protestations, I was quietly curious about organised singles events.

পর্যায়ক্রমে মিলুর দু’স্তন কে মর্দন করে ছেলেটি ততক্ষনে নেমে এসেছে ওর পায়ের পাতায়। ওর পায়ের আঙুলগুলি মুখে পুরে চোষা শুরু করতেই ছিটকে উঠল মিলুর শরীরটা। পায়ের আঙুল চুষলে যে এত উত্তেজনা হয় তা মিলু কোনদিনও জানতো না। মিলু দুইহাতে বিছানার চাদর মুঠো করে ধরতে লাগলো। পরনের পায়জামার মধ্যদেশ ও প্যান্টি ভিজে সপসপ করছে। যৌনাঙ্গের ভিতরে অদ্ভুত সুন্দর একটা অনুভূতি। সারা শরীরে যেন ইলেকট্রিসিটি প্রবাহিত হচ্ছে। সোজা হয়ে বসলো ছেলেটি। আস্তে আস্তে টেনে খুলে নিল মিলুর পরনের পায়জামা ও ভেজা প্যান্টি। হাল্কা কালো যৌনকেশে ঘেরা ভ্যাজাইনাতে চুমু দিল একটা। কেঁপে ওঠে মিলু। জিভ দিয়ে মিলুর নববিবাহিত স্বামী বোলাতে থাকে যৌনাঙ্গের পাপড়িতে, ক্লিটে। জিভ ঢুকিয়ে দিল ভিতরে। পাগল হয়ে গেল মিলু। চোখ বুঁজে বালিশে মাথা এপাশ-ওপাশ করতে থাকল। খামচে ধরলো স্বামীর চুল। মিলুর যৌনছিদ্রে ডানহাতের দুটি আঙুল ঢোকালো ছেলেটি, স্টিমুলেট করতে লাগলো। সাথে সাথে জিভ দিয়ে চাটতে লাগলো মিলুর ক্লিট ও তার চারপাশে। অসহ্য সুখে মরে যাচ্ছিলো মিলু। কোনরকমে মিনিট পাঁচেক টিকে থেকে চাপা চেঁচিয়ে উঠল মিলু, শক্ত মুঠিতে চেপে ধরল ছেলেটির চুল, বিষ্ফোরিত করল নিজেকে এবং আধো অন্ধকারে অর্ধনিমিলিত অবাক চোখে তাকিয়ে দেখল ওর নববিবাহিত স্বামী ওর শরীর থেকে নিঃসৃত তরল জিভ দিয়ে চেটে নিচ্ছে। সামান্য একটু পড়েছে বিছানার চাদরে। উঠে এলো ছেলেটি মিলুর শরীরের উপর। আবার আদর করতে লাগলো মিলুর স্তনে, বগলে, গরম জিভ বুলিয়ে দিল দুই স্তনের মাঝের উপত্যকায়, কানের লতিতে। ততক্ষনে একটু ধাতস্থ হয়েছে মিলু। উলটে দিল সে ছেলেটিকে, ও ওর উপরে উঠে এল। এইসময় নাইট-ল্যাম্প অফ হয়ে গেল। পাওয়ার কাট। কিন্তু মিলু থামল না। আদর করতে লাগলো তার লোমশ বুকে, জিভ বুলিয়ে দিল তার নিপলে, হালকা কামড় দিল কানের লতিতে, অ্যরিওলায়। বাস্তব অভিজ্ঞতা না থাকলেও স্কুলে পড়ার সময় থেকে আজ অবধি ফাজিল বান্ধবীদের থেকে যা যা শিখেছিলো তা অ্যাপলাই করার চেষ্টা করলো, যদিও জানত ওর সদ্যবিবাহিত হাব্বি অনেক বেশী জানে ওর থেকে। ধীরে ধীরে মিলু নেমে এল ছেলেটির শরীরের নিচে। প্রথমবার হাত দিয়ে স্পর্শ করল কোন পুরুষের উত্তেজিত যৌনদন্ড। একটু কেঁপে উঠল ছেলেটি। সে হয়ত অন্য কিছু আশা করেছিল, কিন্তু অনভিজ্ঞ মিলু জানতো না কিভাবে মুখ দিয়ে এটি ব্যবহার করতে হয়। ছেলেটি সেটা বুঝতে পেরে মিলু কে আলতো করে ধরে শুইয়ে দিল চিৎ করে। নিজে দু’হাঁটুর উপর ভর দিয়ে বসল। ঝুঁকে পড়ল মিলুর উপরে ও পিচ্ছিল যোনিপথে নিজের পুরুষাঙ্গকে বসাল মিলুর ভিতরে ঢোকানোর জন্য। চোখ বন্ধ করল মিলু। আস্তে চাপ দিল ছেলেটি, একটু ঢুকল। আবার হাল্কা চাপ, আর একটু। এইভাবে আস্তে আস্তে চাপ দিতে দিতে হঠাৎ জোরে এক মোক্ষম চাপ দিলো ছেলেটি। কঁকিয়ে উঠল মিলু। পুরানো স্মৃতিটা ফিরে আসবো আসবো করছিল, জোর করে তাকে সরিয়ে দিলো মিলু। তার সামনে এখন নতুন জীবন, ওসব নিয়ে একবিন্দুও ভাববে না সে। দুইহাতে জড়িয়ে ধরল সে তার স্বামীর গলা। স্ট্রোক দিতে সুরু করল মিলুর সদ্যবিবাহিত জীবনসঙ্গী। প্রাথমিক ব্যথাটা ছাপিয়ে অন্য একটা অনুভুতি হচ্ছিল মিলুর। আমেজটা ছড়িয়ে পড়ছিল শরীরের প্রত্যেকটা কোনে। স্বর্গসুখের আবেশে তলিয়ে যেতে যেতে দু’হাত দিয়ে ছেলেটির কোমর জড়িয়ে তাকে আরও কাছে টানার চেষ্টা করছিল মিলু। মিনিট দশেক কেটে গেল। আরও একবার অর্গাজম করে মিলুর মনে হচ্ছিল সারারাত এইভাবেই যেন তার হাব্বি তাকে চরম আদর করে। চোখ বন্ধ করে স্বামীর আদর শরীর ও মনে অনুভব করছিল মিলু। ওর শরীরের উপর শুয়ে ওর স্বামী কোমর দোলাচ্ছিল মিলুর আরও ভিতরে নিজেকে প্রোথিত করার জন্য। চোখ খুললো মিলু। পাওয়ার এসে গেছে। নীল নাইট-ল্যাম্পের আলোয় ঘরটা মায়াবী লাগছে আবার। পুরোপুরি চোখ খুললো সে। সঙ্গে সঙ্গে বরফের মতো ঠান্ডা হয়ে গেল ওর শরীর। একমুহুর্তের জন্য হার্টবিট থেমে গেল মিলুর। ছেলেটি মিলুর বাঁ গলায়, কানে জিভ দিয়ে চেটে দিচ্ছিল তখন। ঘরের স্বল্প আলোয় মিলুর দৃষ্টিতে ভেসে উঠলো ছেলেটির বাঁ কাধ। একটি মাঝারি লাল জরুল সেখানে, যেন সমুদ্রের মাঝখানে একটি দ্বীপ। দুইহাত দিয়ে মুখ ঢাকলো মিলু। সারাজীবন কি শেষে এক ধর্ষকের সাথে কাটাতে হবে তাকে?

Each date would last three and a half minutes, after which the 24 women would remain seated as the 24 men rotated.

মিলু সাতসকালেই বাড়ি থেকে বেরিয়ে পরলো। আজ কলেজের নবীনবরন উৎসব। মিলুদের ব্যাচ এবার ফাইনাল ইয়ার। তাই জুতোসেলাই, চন্ডীপাঠ ও আরও যা যা কাজ আছে সবই ওদের ঘাড়ে। মিলু, ওর বেস্টফ্রেন্ড অদিতি ও আরও ছয়জন ছেলেপিলে মিলে একটা গ্রুপ। ওরা স্টেজ ও ডেকরেশনের দায়িত্বে আছে। রাস্তায় নেমে মিলু দৌড়াতে শুরু করলো। লেট হয়ে গেছে, অদিতিটা ঝাড় দেবে। তারাতাড়ি অদিতিদের বাড়ি পৌঁছে একসাথে অটোতে যাবে দুই অভিন্নহৃদয় বন্ধু।বিকেলবেলা থেকে নবীনবরন অনুষ্ঠান শুরু হলো কলেজের পিছনের মাঠে। অথিতিরা আসতে শুরু করলেন, তাঁদের মধ্যে কেউ কেউ আবার এই কলেজের প্রাক্তন ছাত্র, তাঁদের আজ সম্বর্ধনা দেওয়া হবে। মিলু আজ তার মায়ের একটা ধনেখালি শাড়ী পড়েছে। সাথে ম্যাচিং ব্লাউজ। দুপুরে দু’ঘন্টার জন্য বাড়ি এসে মায়ের হালকা বকাবকি শুনতে শুনতে স্নান-খাওয়া করেই সাজগোজ করে আবার দৌড়েছে কলেজে। অনেক ছেলেরা সরাসরি বা আড়চোখে তাকিয়ে দেখছিল ওকে। টুলটুলে মুখ, সাড়ে পাঁচফুট ছুঁইছুঁই, স্বাস্থ্যবতী একুশ বছরের মিলুকে অনেক ছেলেই ট্রাই করেছে, কিন্তু ও কাউকেই পাত্তা দেয় নি। মনে ধরেনি কাউকে সেভাবে। ওর বেস্টফ্রেন্ড অদিতি অবশ্য একটা বয়ফ্রেন্ড জুটিয়েছে সম্প্রতি। সন্ধ্যেবেলা অনুষ্ঠান বেশ জমে উঠলো। খুব সুন্দর ভাবে স্টেজ সাজিয়েছে মিলুরা, অনেকেই প্রশংসা করেছে কাজের। একটু টয়লেটে যাওয়া প্রয়োজন হয়ে পরেছিল মিলুর। অদিতিকে বলে ও লেডিস-রুমে এল। স্বাভাবিকভাবেই কেউ নেই সেখানে, সবাই অনুষ্ঠান দেখছে বাইরে। করিডরে টিউব জ্বলছে। মিলু দেখলো লেডিস-রুমের আলো জ্বলছে না, কিন্তু ভিতরের টয়লেটের আলো এসে পড়েছে রুমের মধ্যে। মিলু আর রুমের আলো জ্বালালোনা- এখুনি তো বেরিয়ে যাবে- ভেবে টয়লেটে ঢুকলো। টয়লেটের দরজা খুলে এসে বেরিয়ে শাড়ীর আঁচলটাকে কাঁধের উপর ঠিকমতো পিন দিয়ে লাগাতে যাবে…

ঠিক এইসময় মিলুর মনে হল পিছনে কেউ এসে দাঁড়িয়েছে। পিছন ফিরে দেখতে যাবার আগেই কেউ যেন মিলুর মুখ চেপে ধরল শক্ত হাতে। চমকে উঠল মিলু, ছাড়াবার চেষ্টা করল নিজেকে। কিন্তু আগন্তুক পুরুষটি বলবান। মুখ চেপে ধরেই মিলুকে টানতে টানতে নিয়ে চললো লেডিস-রুমের পিছনের অংশটায়। উপুড় করে আছড়ে ফেললো মিলুকে মেঝেতে আর একটা কাপড় বা রুমাল জাতীয় কিছু দিয়ে চট্ করে মিলুর মুখটা বেঁধে দিল- চেঁচাবার উপায় রইল না আর। এবার কামুক পুরুষটি শুরু করল মিলুকে নিপীড়ন করা। নিজেকে ছাড়ানোর আপ্রান চেষ্টা করল মিলু, কিন্তু পুরুষটি ছাড়লো না তাকে, চিৎ করে ফেলে তীব্রভাবে ঝাঁপিয়ে পড়লো মিলুর উপর। ছিঁড়ে দিল তার একুশ বছরের নরম বুকের বক্ষাবরণী, হাতদুটিকে পিছমোড়া করে চেপে ধরল এক হাতে, অন্য হাতে মিলুর উরুসন্ধি পর্য্যন্ত শাড়ী গুটিয়ে তুললো এবং সম্পুর্নভাবে পেনিট্রাইজ করলো নিজেকে ওর আদ্যন্ত কুমারী শরীরে। একটা তীব্র ব্যথার ঝলকানি বয়ে গেল মিলুর দেহে, যোনিপথের মধ্যে লঙ্কাবাটার মত জ্বলতে লাগলো ওর। যন্ত্রনায় চোখ দিয়ে জল বেরিয়ে এল মিলুর। ক্রমশ অবশ হয়ে এল মিলুর শরীর ও মন। ওর শরীরের উপরে ঝুঁকে পড়ে কামুক পুরুষটি সজোরে সম্ভোগ করছিলো ওকে। জ্ঞান হারানোর ঠিক আগে ঘরের আবছা আলোয় মিলুর দৃষ্টিতে ভেসে উঠলো সম্ভোগকারী পুরুষটির বাঁ কাধ। একটি মাঝারি লাল জরুল সেখানে, যেন সমুদ্রের মাঝখানে একটি দ্বীপ। -হ্যাঁ, বল মা।– মোবাইলে কলটা ধরে বলল মিলু।- কিরে, আজকে তোকে দেখতে আসবে, ভুলে গেলি?This suggests the exact structure of such an event is ultimately trivial, a high-concept distraction to sell tickets.What speed dating offers is a concentrated version of life: a single person meets other single people, hoping one will stand out from the crowd.Two dozen strangers with slips of paper on which to write their thoughts about me, who had paid actual money to evaluate my potential as a possible romantic partner.It was clear that if we didn’t throw ourselves into proceedings the experience would be harrowing, and so everyone made a tangible effort to act friendly and engaged.Originally published in Oh Comely Issue Thirty-One.

Tags: , ,